পটভূমিঃ সিরিয়া

|| পটভূমি সিরিয়া || 

ইকবাল এইচকে খোকন।

সিরিয়া।পরাশক্তির দ্বন্দ্বে বিপর্যস্ত মানবতার এক বিরানভুমি। মৃত্যৃই যেখানে নিয়তি। এক সময়ের সমৃদ্ধ শান্তির দেশ। আজ তা যুদ্ধবিধ্বস্ত মৃত্যুপুরী। বেচেঁ থাকাই এখন তাদের পরম পাওয়া। পৃথিবীর কয়েকশ কোটি মানুষ যখন জীবনের তাগিদে মহাব্যস্ত, ঠিক তখন সিরিয়াবাসীর রাত পোহায় জীবন-মৃত্যুর কঠিন সত্যে। এ বাস্তবতা চলছে দিনের পর দিন, মাসের পর মাস, বছরের পর বছর। দখলের পৃথিবীর কাছে মানবতা নিতান্তই তুচ্ছ, মানবতার করুন অার্তনাদ চরম অবহেলিত বিশ্ববিবেকের কাছে। রাসায়নিক হামলায় খান সাইখুন শহরে নিহত যমজ সন্তানের লাশ কোলে অসহায় বাবার কান্নার ছবি বিবেককে নাড়া দেয়না, এটি হয়না মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ! বিশ্বের পরাশক্তিগুলো তাদের প্রভাববলয়ের দ্বন্দ্বে আজ লাখো বাবা-মা বা সন্তানের করুন পরিণতির ছবি ভার্চুয়াল জগতে ভেসে বেড়ালেও কাদেঁনা মানবতা।প্রতিনিয়ত সেখানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, রুশ ফেডারেশন, গ্রেট ব্রিটেন এবং ফ্রান্সের বোমাবর্ষণ প্রতিযোগিতা এবং রক্তের খেলায় সিরীয়রা হচ্ছে দাবার গুটি। গৃহযুদ্ধে গোটা সিরিয়া আজ পরিণত হয়েছে যুদ্ধক্ষেত্র, শশানে। ক্ষমতার প্রতিযোগিতা আর পরাশক্তির দ্বন্দ্বে নিত্যদিন মৃত্যুবরণ করছে নারী-শিশুসহ সব শ্রেণীর মানুষ। বোমার আগুনে জ্বলছে তাদের ঘর-বাড়ি। সহায়সম্বল, স্বজন, সব হারিয়ে দিগ্বিদিক ছুটছে অসহায় মানুষগুলো। জীবন বাঁচানোর তাগিদে ঝাঁপিয়ে পড়ছে সমুদ্রে ও সীমান্তে। সিরীয়বাসীর আহাজারিতে ভারী হয়ে উঠছে ইউরোপের শহর-বন্দর অথবা তুরস্ক লেবাননের শরণার্থী শিবির। এ দশা থেকে মুক্তির কোন ক্ষণ জানা নেই তাদের। মানবতা আজ হাইপ্রোফাইলদের টেবিলে, যেখানে লাশের পুড়া গন্ধ, বোমায় ক্ষতবিক্ষত মানুষের অার্তনাদ কিংবা অবুঝ শিশুর আহাজারি পৌছানোর কোন সুযোগ নেই। এই হচ্ছে বিশ্ববিবেক, এই হচ্ছে মানবতা। এর শেষ কোথায় তা অজানা। ধরণির বুকে অাগ্রাসী এ বলয় থেকে মুক্তপৃথিবীটা চিরকালের জন্য কি হারিয়ে যাবে! সময়ই হয়ত সেটা বলে দেবে।

লেখকঃ সম্পাদক

সিলনিউজ২৪.কম

০৮/০৪/২০১৭

Facebook Comments