দিল্লিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে স্বাগত জানালেন নরেন্দ্র মোদী।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ভারতের মাটিতে দেয়া হলো নজিরবিহীন সম্মান। সবাইকে চমকে দিয়ে তাকে অভ্যর্থনা জানাতে দিল্লির পালাম বিমানঘাঁটিতে ছুটে যান ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামাকেও ওই ঘাঁটিতে অভ্যর্থনা জানানো হয়েছিল। সেখান থেকে মোটর শোভাযায় শেখ হাসিনাকে নেয়া হয় রাষ্ট্রপতি ভবনে। 

বেলা সাড়ে বারোটায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বহনকারি বিমান স্পর্শ করে দিল্লির মাটি। 

কথা ছিল কেন্দ্রীয় সরকারের শিল্প প্রতিমন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় অভ্যর্থনা জানাবেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে। কিন্তু সবাইকে চমকে দিয়ে বিমান বাহিনীর পালাম ঘাঁটিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে স্বাগত জানাতে ছুটে আসেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

শেখ হাসিনাকে দেয়া হয় লালগালিচা সংবর্ধনা।

এরপর মোটর শোভাযাত্রায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে যাওয়া হয়, ভারতের রাষ্ট্রপতির আবাসস্থল রাষ্ট্রপতি ভবনে। অন্য কোন দেশের প্রধানমন্ত্রী সফরে এসে ভারতের রাষ্ট্রপতি ভবনে থাকার নজির নেই বললেই চলে। এটাকে বিরল সম্মান বলছেন দুই দেশের কর্মকর্তারা।

সফরের দ্বিতীয় দিন রাষ্ট্রপতি ভবনে শেখ হাসিনাকে অভ্যর্থনা জানাবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এ সফরে যোগাযোগ, তথ্য ও সম্প্রচার, পারমানবিক সহযোগিতা, স্যাটেলাইট ও মহাকাশ গবেষণা, প্রতিরক্ষা সহযোগিতা এবং বিদ্যুত ও জ্বালানী ক্ষেত্রে সহযোগিতার বিষয়সহ ত্রিশটিরও বেশি চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক সই হওয়ার কথা রয়েছে।

তিস্তার বিষয়ে এখোনো আশাবাদী কূটনীতিকরা। কারণ পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় রাষ্ট্রপতির নৈশভোজে যোগ দেবেন, এটি নিশ্চিত হয়েছে। সেখানে এ বিষয়ে আলোচনা হতে পারে।

সফরের শুরুতেই রাষ্ট্রপতি ভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে সৌজন্য সাক্ষাত করেছেন ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রী সুষমা স্বরাজ। এছাড়া দিল্লির চানক্যপুরিতে বাংলাদেশ দূতাবাসে এক সংবর্ধনায় যোগ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

Facebook Comments