বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০, ০২:৩১ অপরাহ্ন

নবীগঞ্জে আ’লীগের একাংশের সভা নিয়ে বিরূপ প্রতিক্রিয়া : জানে না জেলা আওয়ামী লীগ

নবীগঞ্জে আ’লীগের একাংশের সভা নিয়ে বিরূপ প্রতিক্রিয়া : জানে না জেলা আওয়ামী লীগ

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলায় আওয়ামী লীগের (অব্যাহতিপ্রাপ্ত) সভাপতি ও গজনাইপুর ইউনিয়নের (বরখাস্তকৃত) চেয়ারম্যান ইমদাদুর রহমান মুকুলের আহবানে আ’লীগের একাংশের সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রবিবার সকালে নবীগঞ্জ উপজেলা অডিটোরিয়ামে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এ সভাকে কেন্দ্র বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে নবীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীর মাঝে।

উক্ত সভায় নবীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের (অব্যাহতিপ্রাপ্ত) সভাপতি ইমদাদুর রহমান মুকুল তার বক্তব্যে বলেন- তাঁর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র হচ্ছে এবং তিনি কোনো দুর্নীতি করেননি বলে দাবী করেন। যদিও ৪ বছর ধরে গজনাইপুর ইউনিয়নের ১০ টাকা কেজি ধরের তালিকার ২২৯জন সুবিধাভোগীর চাল আত্মসাত করা দায়ে ও উপজেলা প্রশাসন কর্তৃক সরেজমিন তদন্তে চাল আত্মসাতের সত্যতা পাওয়ার পর চেয়ারম্যান মুকুলের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য জেলা প্রশাসকের সুপারিশের ভিত্তিতে গত ৭ জুলাই স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয়ের উপ-সচিব মোহাম্মদ ইফতেখার আহমেদ চৌধুরীর স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে গজনাইপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ইমদাদুর রহমান মুকুলকে চেয়ারম্যান পদ থেকে বরখাস্ত করেন।

এ ঘটনার পর গত ১৫ জুলাই নবীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভা আহবান করা হয়। এতে সর্বসম্মতিক্রমে দুর্নীতির দায়ে বরখাস্তকৃত চেয়ারম্যান ইমদাদুর রহমান মুকুলকে নবীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির পদ থেকে অব্যাহতি দেয়ার সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়। ওই সভায় নবীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি গিয়াস উদ্দিন আহমদকে ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব পালনের সিদ্ধান্ত হয়।

অন্যদিকে গত (১৯ জুলাই) রবিবার ইমদাদুর রহমান মুকুল কর্তৃক সভা আহবানকে মুকুলের ব্যক্তিগত সভা বলে অবহিত করেন আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ। উক্ত সভায় উপজেলা আওয়ামী লীগের হাতে গোনা ২/৩ জন নেতা উপস্থিত ছিলেন। উপস্থিত বাকি ব্যক্তিরা বিভিন্ন গ্রাম থেকে আগত। এনিয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেকাকর্মীর মাঝে বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।

চাল আত্মসাৎকারী হিসেবে প্রমাণিত বিতর্কিত আওয়ামী লীগ নেতা মুকুল কর্তৃক কথিত আ’লীগের ঘরোয়া পরিবেশের সভা আহবানের বিষয়ে জানেনা হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগ।

এ প্রসঙ্গে হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট মো. আবু জাহির এমপি বলেন, নবীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভায় ইমদাদুর রহমান মুকুলকে অব্যাহতি ও পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ জেলা আওয়ামী লীগের কাছে এসেছে সেটা কেন্দ্রে প্রেরণ করা হচ্ছে। কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের কাছে যাওয়ার পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। গতকাল মুকুল কর্তৃক সভা আহবানের বিষয়ে তিনি জানেন না বলে এ প্রতিবেদককে জানান।

এদিকে বিতর্কিত ইমদাদুর রহমান মুকুলকে দলীয় সভাপতির পদ থেকে অব্যাহতি দেয়ার পরও কোন সাংগঠনিক ক্ষমতা বলে তিনি সভা আহবান করেন, এ বিষয়ে আ’লীগের গঠনতন্ত্র কী বলে? এনিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন দলের অনেক নেতা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




themesba-zoom1715152249
© ২০১৭ - সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত - সিলনিউজ২৪.কম
ডিজাইন ও ডেভেলপে Host R Web