সোমবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ০২:০৯ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
‘তেলা পোকাও পাখি আর শাজাহান খানও মানুষ’ : এমপি নিক্সন চৌধুরী এডভোকেট নাসির উদ্দীন খাঁনকে বিশ্বনাথ উপজেলা আওয়ামী লীগের ফুলেল শুভেচ্ছা মাসুক উদ্দিন আহমদকে শুভেচ্ছা জানিয়েছে সিলেট আইনজীবী সমিতি সুরমা মার্কেট থেকে ওয়ারেন্টভুক্ত পলাতক আসামীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব চুনারুঘাট থেকে ইয়াবাসহ পেশাদার মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৯ সিলেট মহানগর যুবদলের ১১নং ওয়ার্ডের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত টেকনিক অব আর্টস এন্ড ক্রাফটস’র উপর ৫টি দিন ব্যাপী কর্মশালা সমাপনী অনুষ্ঠান সম্পন্ন জগন্নাথপুরে মোটর সাইকেল দুর্ঘটনায় ২ জনের মৃত্যু এসএ গেমসে একদিনেই বাংলাদেশের ৬টি স্বর্ণ জয় ২৮ ক্যাটাগরিতে ৬২ জনকে দেওয়া হলো জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার
এস কে সিনহাসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিটের অনুমোদন

এস কে সিনহাসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিটের অনুমোদন

সিলনিউজ অনলাইনঃ ফারমার্স ব্যাংকের গুলশান শাখা হতে ৪ কোটি টাকা ভুয়া ঋন সৃষ্টি আত্মসাতের মামলার সাবেক প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহাসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিটের অনুমোদন দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, ২০১৮ সালের অক্টোবরে দুদকের অনুসন্ধানে ফারমার্স ব্যাংকের দু’টি অ্যাকাউন্ট থেকে চার কোটি টাকা ঋণ নেওয়ার ক্ষেত্রে জালিয়াতির প্রমাণ মেলে।

ফারমার্স ব্যাংক (বর্তমানে পদ্মা ব্যাংক) থেকে ৪ কোটি টাকা আত্মসাৎ ও পাচারের অভিযোগে সাবেক প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহাসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে চলতি বছর (২০১৯ সাল) জুলাই মাসে মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

মামলার অন্য আসামিরা হলেন-ফারমার্স ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক একেএম শামীম, সিনিয়র এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট ও সাবেক ক্রেডিট প্রধান গাজী সালাহউদ্দিন, ফার্স্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট স্বপন কুমার রায়, সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট ও সাবেক শাখা ব্যবস্থাপক মো. জিয়া উদ্দিন আহমেদ, ফার্স্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট শাফিউদ্দিন আসকারী, ভাইস প্রেসিডেন্ট মো. লুৎফুল হক, টাঙ্গাইলের ব্যবসায়ী মো. শাহজাহান, একই এলাকার নিরঞ্জন চন্দ্র সাহা, সান্ত্রী রায় ওরফে সিমি ও তার স্বামী রণজিৎ চন্দ্র সাহা।

মামলায় ঘটনাস্থল দেখানো হয়, ফারমার্স ব্যাংকের (বর্তমানে পদ্মা ব্যাংক) শুলশান শাখা ও প্রধান কার্যালয়। ঘটনার সময় দেখানো হয়েছে ২০১৬ সালের নভেম্বর থেকে ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বর। মামলাটি দায়ের করা হয়েছে দণ্ডবিধির ৪০৯, ৪২০, ১০৯ ও ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫ (২) ধারা ও মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ আইন, ২০১২-এর ৪ (২), (৩) ধারায়।

প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালের অক্টোবরের শুরুতে ছুটিতে যান তৎকালীন প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা। পরে বিদেশ থেকে পদত্যাগপত্র পাঠিয়ে দেন বলে ওই সময় সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




themesba-zoom1715152249
© ২০১৭ - সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত - সিলনিউজ২৪.কম
ডিজাইন ও ডেভেলপে Host R Web